বহরমপুরে হেরিটেজ স্কুলে এ কোন ছবি  ! শিক্ষককে মারের অভিযোগ !

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্কঃ  মুর্শিদাবাদের হেরিটেজ স্কুল জিটিআই, সেই হেরিটেজ স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে এক সহ শিক্ষকের ঝামেলা এবার কার্যত  রাস্তায় নেমেছে ।  দুইপক্ষ দুইপক্ষের বিরুদ্ধে বহরমপুর থানায় অভিযোগ করেছেন । সহ শিক্ষককের আরও অভিযোগ, জাত তুলেও গালিগালাজ করা হয়েছে। বিতর্কের কেন্দ্রে  রাজ্যের প্রধান শিক্ষকদের রাজ্য সম্মেলন উপলক্ষ্যে স্কুলের ক্লাস  বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ।  শুক্রবার দুপুরে ঘটনার সূত্রপাত  ।

অভিযোগ,  জিটিআই স্কুলের প্রধান শিক্ষক শুক্রবার টিফিনের পর আচমকায় স্কুল ছুটি দিয়ে দিয়েছিলেন। বলা হয়েছিল,   রাজ্যের বিভিন্ন পান্তের প্রধান শিক্ষকদের অর্ভ্যথনা জানানোর প্রস্তুতি হিসাবে স্কুল প্রস্তুত করা হবে । আর এতেই চরম ক্ষুব্ধ হয়ে স্কুলেরই সহ শিক্ষক মুক্তিপদ কোনাই সরাসরি অভিযোগ দায়ের করেন জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শকের কাছে।

জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক  সাথে সাথেই জিটিআই এর প্রধান শিক্ষককে  স্কুল বন্ধ না করার নির্দেশ দেন । অভিযোগ,  তাতেই বেজায় চোটে যান প্রধান শিক্ষক । তিনি ওই সহ শিক্ষককে সবক শেখানোর জন্য  টাউন তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি ,  জিটিআই স্কুলের পরিচালন সমিতির সভাপতি বিপ্লব কুণ্ডুকে খবর দেন বলে অভিযোগ  । বিপ্লব কুণ্ডু সেই সময় শহরের বাইরে থাকায় তাঁর রিপ্রেজেন্সটেটিভ হিসাবে স্কুলে কিছু তৃণমূল নেতাকে পাঠান। আক্রান্ত শিক্ষকের অভিযোগ তারাই নাকি প্রধান শিক্ষকের ঘরে সহ শিক্ষক মুক্তিপদ কোনাইকে ডেকে সবক শেখান ।

 

 

আর এখান থেকেই শুরু হেরিটেজ স্কুলের স্কুলের অন্দরে ধিকিধিকি চাপা অসন্তোষ প্রকাশ্যে আসার প্রক্রিয়া।   যদিও প্রধান শিক্ষক তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন এবং পাল্টা ঐ সহ শিক্ষকের বিরুদ্ধেই তোপ দেগেছেন। জিটিআই’এর প্রধান শিক্ষক সন্দীপ দাসগুপ্তের দাবী , স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি  ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।  ওই শিক্ষক স্কুলের পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করছেন বলেও দাবী প্রধান শিক্ষকের। প্রধান শিক্ষকের দাবী, হেনস্থা করা হয় নি ওই শিক্ষককে।

 

জিটিআই স্কুল নিয়ে রাজনৈতিক তরজাও শুরু হয়েছে।  প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি, বহরমপুরের সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরীর দাবী, সরকারি দল গুন্ডামি করছে, মস্তানি করছে কোন প্রতিষ্ঠান মানছে না। প্রতিষ্ঠানের সমস্ত ঐতিহ্য ভেঙে চুরমার করে দিচ্ছে।