দীর্ঘ ছ’মাস পর খুলল বেলডাঙার বড়ুয়া হাট

নিজস্ব প্রতিবেদন: করোনা কালে টানা ছ’মাস বন্ধ থাকার পর খুলে গেল পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম বড় মুর্শিদাবাদের বেলডাঙার বড়ুয়া হাট। করোনা আবহে সংক্রমণের আশংকা থেকেই হাট বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় হাট কতৃপক্ষ। গত ১৬ ই মার্চ থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয় এই হাট। অবশেষে দীর্ঘ ছমাস পর আবারও সেই হাট খুলল। ১৫ ই সেপ্টেম্বর থেকে হাট বসল আগের মতোই। করোনা কালে নিউ নর্মালে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে সব কিছুই। এবার ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে চাইছে বড়ুয়া হাটও। ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক লাগোয়া এই সাপ্তাহিক হাট খোলায় অল্প সংখ্যক ক্রেতা বিক্রেতার আনাগোনা হয়। পশু হাট থেকে শুরু করে কাপড়, সব্জি, ফল, লোহার সামগ্রী, মাছ ধরার জাল, সুতো, বাঁশ বেতের সামগ্রী- কি মেলেনা এই হাটে। ছয় মাস পর হাট খোলায় ব্যবসায়ীরা আবার স্বস্তিতে। আর্থিক দুরাবস্থার মধ্যে থেকে আবার হাট খোলায় রোজগারের পথ খুলল বলেই জানাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।

যদিও প্রথম দিনের হাটে সেভাবে ভিড় ছিল না। অল্পতেই সন্তুষ্ট হতে চাইছেন ব্যবসায়ীরা। ধীরে ধীরে বেচাকেনা স্বাভাবিক হবে আশা ব্যবসায়ীদের।

ছয় মাস পর হাট খুললেও ট্রেন পরিষেবা এখনও স্তব্ধ থাকায় হাটে ক্রেতা বিক্রেতাদের আনাগোনা অনেকটাই কম। অনেকেরই যাতায়াতের সমস্যা রয়েছে। ফলে হাটে এসেও দুশ্চিন্তায় ব্যবসায়ীরা।

এই বড়ুয়া হাটে হাজার হাজার মানুষের আনাগোনা হয়। কোটি কোটি টাকার ব্যবসাও হয়। শুধুমাত্র মুর্শিদাবাদ নয়, পাশের মালদাহ, নদীয়া, বর্ধমান, চব্বিশ পরগনা বিভিন্ন জেলা থেকে ব্যবসায়ীরা আসেন। এমনকি ভিন রাজ্য থেকেও আসেন। সেক্ষেত্রে নিউ নর্মালে কিভাবে দূরত্ব বিধি মানা হবে, স্বাস্থ্য বিধি মেনে ব্যবসায়ীদের জন্য কি নির্দেশিকা থাকছে- সেটাও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।