গঙ্গা ভাঙনের অভিশাপে অস্তিত্বের সঙ্কটে ধানঘরা গ্রাম

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ গোটা গ্রাম আজ নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার মুখে, গঙ্গা পারে বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে ঘর বাড়ি। যে কোন মুহূর্তে গঙ্গার গ্রাসে চলে যাওয়ার আশংকা। মুর্শিদাবাদের সামসেরগঞ্জের নিমতিতা গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত ধানঘরা গ্রাম আজ অস্তিত্বের সঙ্কটে ভুগছে। বিগত ক দিন ধরেই ভাঙনে দিশাহারা গ্রামের মানুষজন। বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে আবারও ভাঙতে শুরু করেছে নদী পার। বিকেলের ভাঙনে ১০ টা বাড়ি গঙ্গা বক্ষে তলিয়ে গিয়েছে চোখের নিমেষে, জমি জায়গা সব কিছুই ধুলিস্যাৎ হয়েছে। ধানঘরা গ্রাম জুড়ে এখন শুধুই হাহাকার আর কান্না। প্রায় ৫০০ র উপরে ঘর বাড়ি ভেঙে ফেলা হয়েছে। লাগাতার ভাঙনে ৭০ টিরও বেশি বাড়ি গঙ্গা বক্ষে তলিয়ে গিয়েছে। নিঃস্ব হয়ে দু চোখে জল টুকুই যেন সম্বল গ্রামবাসীদের।

গোটা গ্রাম জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ধ্বংসের চিহ্ন। লোকজন নেই, প্রাণে বাঁচতে শেষ সম্বল টুকুও খুইয়েছেন অনেকেই। ভেঙে ফেলেছেন ইটের পাকা বাড়ি। কিছুই ধরে রাখতে পারেন নি তারা। অভিশপ্ত ভাঙনে সর্বস্বান্ত হয়ে গ্রামবাসীদের দু চোখে শুধুই জল।

গ্রামবাসীরা বলছেন লাগাতার গঙ্গা ভাঙনে গোটা গ্রাম জলের তলায় চলে যাচ্ছে, মাথা গোঁজার ঠাই নেই, খোলা আকাশের নীচে দিন গুজরান হচ্ছে, গ্রাম ছেড়ে, ভিটে মাটি হারিয়ে অনেকেই প্রাণ বাঁচাতে চলে যাচ্ছেন অন্য গ্রামে, আত্মীয় সজনদের কাছে।

ধানঘরা গ্রামে ভাঙন রোধে এর আগে বহু পরিদর্শন দেখেছেন গ্রামবাসীরা, বহু প্রতিশ্রুতি মিলেছে, ভাঙন রোধে সেচ দপ্তরের তরফে সাময়িক বাঁধ দেওয়ার কাজও হয়েছে- কিন্তু এত কিছুর পরেও গঙ্গা ভাঙনের অভিশাপ থেকে মুক্তি পাচ্ছে না ধানঘরা। আস্ত একটা গ্রাম আজ বিলুপ্তির মুখে। এই সংকটময় বিপর্যয় থেকে উদ্ধার করা হোক তাদের, দেওয়া হোক পুনর্বাসন- এটুকুই চাইছেন ধানঘরার মানুষজন।